শুক্রবার, ১৭ জুলাই ২০২০

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক ভিসি, বরেণ্য রাষ্ট্রবিজ্ঞানী, রাজনীতি বিশ্লেষক, বিশিষ্ট বুদ্ধিজীবী, অধ্যাপক ড. এমাজউদ্দীন আহমদের ইন্তেকালে গভীর শোক প্রকাশ করেছে বাংলাদেশ ইসলামী ছাত্রশিবির।

এক যৌথ শোকবার্তায় ছাত্রশিবিরের কেন্দ্রীয় সভাপতি মো. সিরাজুল ইসলাম ও সেক্রেটারি জেনারেল সালাউদ্দিন আইউবী বলেন, আজ শুক্রবার ভোরে স্ট্রোক করলে অধ্যাপক এমাজউদ্দীন আহমদকে রাজধানীর ল্যাবএইড হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে ইনটেনসিভ কেয়ার ইউনিটে (আইসিইউ) চিকিৎসাধীন অবস্থায় সকাল পৌনে ৬টায় তিনি ইন্তেকাল করেন। ইন্নালিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন। তাঁর ইন্তেকালে আমরা একজন শিক্ষাবিদ ও দেশপ্রেমিক বুদ্ধিজীবীকে হারালাম। একাধারে তিনি ছিলেন শিক্ষক, কলামিস্ট, সাহিত্যিক ও সাবেক ছাত্রনেতা।

মহান ভাষা আন্দোলনের প্রেক্ষাপটে ১৯৫২ এর পরবর্তী সময়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অন্যতম ছাত্রনেতা হিসেবে অধ্যাপক এমাজউদ্দীন আহমদ গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব পালন করেন। ছাত্রনেতা হিসেবে দায়িত্ব পালনের সময়ে তিনি কারাবরণ করেছিলেন। শিক্ষা ক্ষেত্রে তিনি অসামান্য অবদান রেখেছেন। তিনি রাষ্ট্রবিজ্ঞানসহ বিভিন্ন বিষয়ে ৫০টিরও বেশি বই লিখেছেন। শিক্ষা ক্ষেত্রে অনবদ্য অবদানের স্বীকৃতি স্বরূপ বাংলাদেশ সরকার ১৯৯২ সালে তাঁকে একুশে পদক প্রদান করে। সৃষ্টিশীল গবেষণা ও আলেখ্য রচনার জন্য ‘মহাকাল কৃষ্টি চিন্তা সংঘ স্বর্ণপদক’, জাতীয় সাহিত্য সংসদ স্বর্ণপদক, জিয়া সাংস্কৃতিক স্বর্ণপদকসহ জাতীয় ও আন্তর্জাতিক পর্যায়ের বহু পুরস্কার ও সম্মাননা অর্জন করেন।

সমৃদ্ধ জাতি গঠনে ও যুগোপযোগী শিক্ষাব্যবস্থা গড়ে তুলতে তিনি সচেষ্ট ছিলেন। তাছাড়া গণতন্ত্র ও মানুষের মৌলিক অধিকার রক্ষার পক্ষে তাঁর অবস্থান ছিল সুদৃঢ়। বিপন্ন গণতন্ত্র, ভোটাধিকার, মানুষের অধিকার আদায়ের পক্ষে তাঁর সোচ্চার কণ্ঠ ও বিশ্লেষণ মানুষকে আন্দোলিত করেছে। চলমান একদলীয় শাসন ব্যবস্থার বিরুদ্ধে তিনি প্রথম সারিতে থেকে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছেন। রাজনৈতিক অস্থিরতা নিরসনে তিনি শেষ পর্যন্ত আপ্রাণ চেষ্টা চালিয়ে গেছেন।

ইন্তেকালের সময় তিনি দুই মেয়ে ও দুই ছেলেসহ অসংখ্য গুণগ্রাহী রেখে গেছেন। ছাত্রশিবিরের প্রতি তাঁর অকৃত্রিম ভালোবাসা ও দিক-নির্দেশনা আমরা কখনো ভুলবো না। শিবিরের বিভিন্ন স্মারকগ্রন্থে প্রদত্ত তাঁর বাণীসমূহ আমাদের প্রতি তাঁর গভীর অনুরাগেরই স্বাক্ষর বহন করে চলবে। তাঁর ইন্তেকালে আমরা গভীরভাবে শোকাহত।

আমরা আল্লাহ তায়া’লার নিকট তাঁর রুহের মাগফিরাত কামনা করছি এবং শোক-সন্তপ্ত পরিবার-পরিজনদের প্রতি গভীর সমবেদনা জানাচ্ছি।

 

সংশ্লিষ্ট